চট্টগ্রাম ডক বন্দর অঞ্চলের ১৬ দফা দাবী আদায়ের লক্ষ্যে শ্রমিকরা এখন প্রেস ক্লাবে

0
363

আনিসুর রহমান: চট্টগ্রাম ডক বন্দর অঞ্চলের শ্রমিক ও ষ্টিভিডোরিং কর্মচার্মচারীদের ১৬ দফা দ্বাবী আদায়ের লক্ষে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

আজ বৃহস্পপিবার সকাল ১১.০০ ঘটিকায় আব্দুল খালেক মিলনায়তনে ১ সংবাদ সম্মেলনে নিম্নোক্ত দফাগুলোর দাবী উত্তাপন করেন শ্রমিক নেতারা।
চট্টগ্রাম শ্রমিক কর্মচারীদের যে সকল সুযোগ-সুবিধা ছিলো, (০১/১১) এক এগারোর সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে কিছু কতিপয় মালিক গোষ্ঠি শ্রমিক কর্মচারীদের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে শ্রমিকদের ন্যায্য দাবী দাওয়া ও সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত করেন।
১। শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রনালয়েংর মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাবা বেগম মুন্নুমান সুয়ফয়ানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী স্মারক নং-শ্রকম/প্রতিমন্ত্রী/২০০৯/২৯১, তারিখঃ ২৬/১০/২০১২িইং চুক্তি মোতাবেক শ্রমিক ও কর্মচারীদের বুকিং সংস্থার মাধ্যমে বাই রোটেশান পদ্ধতিতে বুকিং এর ব্যবস্থা এবং পোষ্যকে অগ্রধিকার ভিত্তিতে নিয়োগ দিতে হবে।
২। চবক দপ্তরাদেশ নং-পপশ্র/গ্যাং মুজুরী/১০/২০১০, তারিখঃ ২৫/১০/২০১০ইং সমঝোতা স্মারক (MOU) চুক্তি মোতাবেক শ্রমিক কর্মচারীদের ন্যয় সঙ্গত অধিকার বাস্তবায়ন করতে হবে।
৩। কর্মরত ও যাচাই বাছাইকৃত শ্রমিক কর্মচারীদেরকে শ্রম শাখায় তালিকাভুক্ত করে শ্রম আইন মোতাবেক নিয়ম অনুযায়ী নিয়োগ প্রদান করতে হবে।
৪। শ্রম শাখা থেকে বাদ পরা কর্মরত বার্থ, শীপ ও টার্মিনাল অপারেটর (এক্সট্রা হিইজ গ্যাং) শ্রমিকদের শ্রম শাখায় তালিকাভুক্ত করতে হবে।
৫। সকল শ্রমিক কর্মচারীদেরকে বন্দরের নিয়ম মোতাবেক পূর্বের ন্যায় বন্দর পরিচয়পত্র ও স্থায়ী গেইট পাশ প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ৬। সকল শ্রমিক কর্মচারীদের জন্য পূর্বের ন্যায় চিকিৎসা ব্যবস্থা গ্রহণ সহ ১০০ শয্যার হাসপাতাল নির্মান করতে হবে। ৭। সকল শ্রমিক কর্মচারীদের জন্য পূর্বের ন্যায় আবাসিক কলোণি নির্মাণ করতে হবে। ৮। সকল শ্রমিক কর্মচারীদেরকে (২৬) ছাব্বিশ ডিউটির নিশ্চয়তা অথবা নূন্যতম মাসিক বেতন ৩০,০০০ (ত্রিশ হাজার) টাকা নির্ধারণ করতে হবে। (বর্তমানে চট্টগ্রামে একজন শ্রমিকের বেতন- ৩০০ টাকা এ শিফটে কাজ করলে প্রদান করা হয়।)
৯। দেশের শ্রম আইন মোতাবেক শ্রমিক কর্মচারীদের সাপ্তাহিক ছুটি প্রদান করতে হবে, করতে হবে। ১০। বর্হিনোঙ্গরে শ্রমিক কর্মচারীদের যাতায়তের জন্য লাইফবোট প্রদান করতে হবে।
১১। উইন্স ম্যানদের কে শ্রম শাখায় অর্ন্তভুক্ত করণ সহ ২০০৭ সাল থেকে গ্রেজুয়িটি ফ্রভিডেন্ট ফান্ড ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা প্রদান করতে হবে। ১২। কোষ্টারহেজ শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি নং-১৪০৫ এর পক্ষে উচ্চ আদালতের রায় মোতাবেক শ্রমিক গ্যাং বুকিং করা এবং ঠিকাদার রেজি নং ১৪২৭ এর নিকট শ্রমিকের পাওনাকৃত বকেয়া মজুরি পরিশোধ এর দাবী জানাচ্ছি। ১৩। বন্দর কর্মচারীদের ন্যায় প্রত্যেক কর্মচারীদের জন্য ঝুঁকি ভাতা, উৎসব ভাতা, বৈশাখী ভাতা সহ বিভিন্ন ধরনের ভাতা ও (২০,০০,০০০) বিশ লক্ষ টাকা সমপরিমাণ বীমা করতে হবে।
১৫। বার্থ অপারেটর, শিপ হ্যান্ডলিং ও টারমিনাল অপারেটর কর্তৃক বহিরাগত লোক দ্বারা কোন কার্য্য সম্পাদন করা যাবে না।১৬। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা মোতাবেক চট্টগ্রাম বন্দরকে ২৪ (চব্বিশ) ঘন্টা অপারেশন কর্মচারী হিসেবে ঘোষনা করা হোক।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় শ্রমিকলীগ ডক বন্দর অঞ্চলের সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল খালেক চৌধুরী, জাতীয় শ্রমিকলীগ ডক বন্দর অঞ্চলের কার্যকরী সভাপতি মোহাম্মদ ফোরকান, জাতীয় শ্রমিকলীগ ডক বন্দর অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জামাল উদ্দীন, জাতীয় শ্রমিকলীগ ডক বন্দর অঞ্চলের সহ-সভাপতি এম.এ.ইউসুফ হায়দার, এস.এম মহিউদ্দিন, গোলাম মোহাম্মদ দস্তগীর, মোহাম্মদ সাছির উদ্দিন চৌধুরী, জেবল হক, বজলুল রহমান, জাতীয় শ্রমিকলীগ ডক বন্দর অঞ্চলের সাংঠনিক সম্পদক হারুন-অর-রশিদ, ফিরোজ আহম্মেদ জাবেদ, নূর আলম লিটন, এম.এ আজাদ চৌধুরী, জিয়াউর রহমান (বাবু), মোহাম্মদ তারেক চৌধুরী, মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, মোহাম্মদ মারুফ, আবদুস ছাত্তার।

Leave a Reply