জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযানে বিভিন্ন অপরাধে ৯৯টি প্রতিষ্ঠানকে ৩.৬০ লক্ষ টাকা জরিমানা

14
1069

গতকাল৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ খ্রি: বাণিজ্য মন্ত্রণালয়াধীন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়, বিভিন্ন বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়ের ২৯ জন কর্মকর্তার নেতৃত্বে ঢাকা মহানগর, শেরপুর, নেত্রকোণা, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, রাজবাড়ী, কিশোরগঞ্জ, গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, মাদারীপুর, কক্সবাজার, ফেনী, চট্টগ্রাম, রংপুর, ভোলা, সিরাজগঞ্জ, কুমিল্লা, পটুয়াখালী, ঝিনাইদহ, নোয়াখালী, জয়পুরহাট, চুয়াডাঙ্গা, মৌলভীবাজার, বরিশাল, কুষ্টিয়া, সাতক্ষীরা, সিলেট ও হবিগঞ্জে আজ বাজার তদারকি করা হয়।

প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক জনাব প্রনব কুমার প্রামানিক কর্তৃক বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মোবাইল টিমের সাথে ঢাকা মহানগরীর রামপুরা এলাকায় পণ্যের মোড়কে এমআরপি লেখা না থাকা ও মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্য বিক্রির অপরাধে ২টি প্রতিষ্ঠানকে ৩,০০০/- (তিন হাজার) টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়।

দেশব্যাপী ২৮টি জেলায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাদ্য পণ্য তৈরি, পণ্যের মোড়কে এমআরপি লেখা না থাকা, মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্য বা ঔষধ বিক্রয়, প্রতিশ্রুত পণ্য বা সেবা যথাযথভাবে বিক্রয় বা সরবরাহ না করা, পরিমাপে কারচুপি, খাদ্য পণ্যে নিষিদ্ধ দ্রব্যের মিশ্রণ, মিথ্যা বিজ্ঞাপন দ্বারা ক্রেতা সাধারণকে প্রতারিত করা, সেবা গ্রহীতার জীবন বা নিরাপত্তা বিপন্নকারী কার্য, ওজনে কারচুপির, অবহেলা ইত্যাদি দ্বারা সেবা গ্রহীতার অর্থ, স্বাস্থ্য, জীবনহানি ইত্যাদি ঘটানোর অপরাধে ৯৩টি প্রতিষ্ঠানকে ৩,৪০,৩০০/- (তিন লক্ষ চল্লিশ হাজার তিনশত) টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়।

অন্যদিকে লিখিত অভিযোগ নিষ্পত্তির মাধ্যমে ধার্য্যকৃত মূল্যের অধিক মূল্যে পণ্য বিক্রয়, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাদ্য পণ্য তৈরি ও পণ্যের নকল প্রস্তুত বা উৎপাদনের অপরাধে ৪টি প্রতিষ্ঠানকে ১৭,০০০/- (সতের হাজার) টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় এবং ৪ জন অভিযোগকারীকে জরিমানার ২৫% হিসেবে ৪,২৫০/- (চার হাজার দুইশত পঞ্চাশ) টাকা প্রদান করা হয়।

গত ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখে ২৯টি বাজার তদারকি ও ৪টি লিখিত অভিযোগ নিষ্পত্তির মাধ্যমে ৯৯টি প্রতিষ্ঠানকে মোট ৩,৬০,৩০০/- (তিন লক্ষ ষাট হাজার তিনশত) টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয় এবং আদায়কৃত জরিমানা হতে ৪ জন অভিযোগকারীকে ৪,২৫০/- (চার হাজার দুইশত পঞ্চাশ) টাকা প্রদান করা হয়। সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ, সিভিল সার্জন, মৎস্য কর্মকর্তা, পরিবেশ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, বাজার কর্মকর্তা, স্যানেটারী ইন্সপেক্টর, শিল্প ও বণিক সমিতির প্রতিনিধি এবং ক্যাব এসব তদারকি কার্যে সহায়তা প্রদান করেন। তদারকিকালে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে লিফলেট ও প্যাম্পলেট বিতরণ করা হয়েছে।

14 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে