উন্নয়নের কারিগর চৌগাছার এসএম হাবিবুর রহমান

0
763

মোঃ মহিদুল ইসলাম (চৌগাছা প্রতিনিধি): ৩৭ বছর ধরে  চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক  এম হাবিবুর রহমান ।

যশোরের চৌগাছা উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম হাবিবুর রহমানের এক নজরে বংশ পরিচয়।
নাম ঃ এস এম হাবিবুর রহমান, বীরমুক্তিযোদ্ধা।ডাক নাম ঃ এস এম হাবিব।
পিতার নাম ঃ আলহাজ্জ মরহুম মর্ত্তজ আলী সর্দার।মাতার নাম ঃ শরিফুন্নেছা। স্থায়ী ঠিকানা : গ্রাম: চাঁদপুর, ডাকঘরঃ চৌগাছা, থানা: চৌগাছা, জেলা: যশোর।

জন্ম তারিখঃ ১৯/০৭/১৯৫২  খ্রি।পেশা ঃ ব্যবসা।বৈবাহিক অবস্থা ঃ  বিবাহিত, দুই কন্যা, এক পুত্র সন্তানের জনক।

শিক্ষাগত যোগ্যতা: বি এ (অনার্স)এম.এ, এল.এল.বি। শখঃ  সার্বক্ষণিক জনসেবা।

রাজনৈতিক কর্মকান্ড ঃ
★★ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রহমানের একান্ত আস্থাভাজন, যশোর জেলার কৃতি সন্তান, মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে জীবন উৎস্বর্গকারী শহীদ মসিয়ূর রহমান সাহেবের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু আদর্শের প্রতি অবিচল আস্থাশীল হয়ে পিতা-মাতার অনুপ্রেরণায় ১৯৬৯ খ্রি স্কুল জীবন থেকে রাজনৈতিক কর্মকান্ড শুরু করে।

★★ ১৯৬৬ খ্রি. বঙ্গবন্ধু ঘোষিত স্বাধিকার আন্দোলনের মুক্তির সনদ ৬ দফা এবং ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ১১ দফা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এলাকার গণমানুষকে ঐক্যবদ্ধ করার কাজে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে এবং গণঅভ্যুথানে সামিল হই।

★★ ১৯৭০ খ্রি. নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু আওয়ামীলীগে এম.এন. এ প্রার্থী হিসেবে জনাব মসিয়ূর মনোনয়ন প্রদান করেন। সে বছর সে প্রথম ভোটার ছিলও। সে হিসাবে প্রার্থী কর্মি হয়ে নৌকা প্রতীকের পক্ষে তার অঞ্চলে প্রচার-প্রচারনা অংশ গ্রহণ করে।

★★ ১৯৭১ খ্রি. বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষণ এবং ২৬ শে মার্চের স্বাধিনতার ঘোষণায় অনুপ্রাণিত হয়ে তাহার পিতার উৎসাহে মহান মুক্তিযুদ্ধে ০৮ নং সেক্টরে অংশ গ্রহণ করে। তার মুক্তিযুদ্ধো নম্বর : লাল মুক্তিবার্তা-০৪০৫০৭০২৪৩, গেজেট নং-১৮৪০,মুক্তিযোদ্ধা সনদ নং-ম-২৪০৩৫।

★★ ১৯৭২ খ্রি. চৌগাছা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নিবার্চিত হয়ে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করে।

★★ ১৯৭৭ থেকে ১৯৭৮ খ্রি. নবগঠিত চৌগাছা থানা যুবলীগের নবগঠিত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পালন করে।

★★ ১৯৭৮ খ্রি. নবগঠিত চৌগাছা থানা আওয়ামীলীগের  নতুন কমিটি গঠন করা হলে তাকে থানা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব দেন  এবং ১৯৮০ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করে।

★★ ১৯৮১ খ্রি. চৌগাছা থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করে ৩৭ বছর যাবৎ ধরে নিষ্ঠার সাথে পালন করে এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত কে শক্তিশালী করে  বঙ্গবন্ধু আদর্শ বাস্তবায়নের কাজে নিয়োজিত থাকে।

★★ ২০১৮ খ্রি. ৯ই মার্চ কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের সিদ্বান্ত মোতাবেক তাকে চৌগাছা উপজেলা আওয়ামীলীগের সংগ্রামী সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করে এবং তৃর্ণমূল পর্যায়ে নেতা-কর্মীদের সুসংগঠিত করার নির্দেশ প্রদান করে।

★★ যশোর জেলা আওয়ামীলীগের কার্যকরী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব আছে।

স্থানীয় রাজনৈতিক ঃ
★★১৮৮৩-২০০৩ খ্রি. পর্যন্ত টানা ২০ বছর চৌগাছা ইউনিয়ন পরিষদের নিবার্চিত চেয়ারম্যান হিসেবে মানব সেবায় নিয়োজিত এবং তার-ই ফলশ্রুতিতে ১৯৯৯ খ্রি. বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকারের মন্ত্রণালয়ের সার্বিক বিবোচনায় যশোর জেলায় শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান নিবার্চিত হই এবং স্থানীয় সরকার,পল্লীয় উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব জিল্লুহ রহমানের হাত থেকে স্বর্ণপদক লাভ করে।

★★ ২০০২-২০০৩ অর্থ বছরে ইউনিয়ন পরিষদ ব্যাবস্থাপনায়, ট্রাক্স/রাজস্ব আদায়, হাট
বাজার,ব্যাবস্থাপনা,হিসাব-পরিচালনয়, গ্রাম আদালত,বৃক্ষ রোপন, জন্ম নিবন্ধীকরণ, মহিলা সদস্যোর অংশ গ্রহণ,  নাগরিক সেবা, ভিজিএফ কার্যক্রম প্রকল্প ও সুষ্ঠ বাস্তবায়ন এবং সম্পাদ ব্যাবস্থাপনা ও সংরক্ষণ মূল্যায়নে সারা বাংলাদেশের মধে প্রথম স্থান অধিকার করে *শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান* নিবার্চিত হই।

★★ ২০০৯ সালে তৃতীয় উপজেলা পরিষদ নিবার্চনে প্রথম বারের মত চেয়ারম্যান নিবার্চিত হই এবং ২০১৪ সালে পুনরায় নিবার্চিত হয়ে অদ্যাবধি জনগণের ভালোবাসা  ও সহযৌগিতায় পরিষদ পরিচালনা করে আচ্ছে।

রাজনৈনিক নির্যাতন ঃ
★★ ১৯৮১ খ্রি. রাজনৈতিক কারণে তদািন্তন বিএনপি সরকার ও তার কর্মীদের অন্যায় এবং অত্যাচারের প্রতিবাদ করতে গেলে তাকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করে (০৩) তিন মাসের ডিটেশন দেয়।

★★ ১৯৮৭-১৯৮৮ খ্রি. স্বৈরচার  এরশাদ সরকার হটাও আন্দোলনে তাকে গ্রেফতার করে ছয় মাস ডিটেশন দেয়।

★★ ২০০২ খ্রি. ক্লিনহার্ট অপারেশনে বিএনপির নেতৃবৃন্দের নির্দেশে  ও ষড়যন্ত্রে তাকে গ্রেফতার করে
নয় বার রিমান্ডসহ একটানা ২৭ দিন নির্মমভাবে অমানবিক ও শারিরীক নির্যাতন করা হয় এবং ছয় মাস ডিটেশন দেয়। যার পরিণতিতে জেলখানায়  বিনাচিকিৎসায় পঙ্গু হয়ে যায়। বিদেশে উন্নত চিকৎসার অভাবে শারিরীক অসুস্থতায় মানবেতর জীবন যাপন করে। এ ঘটনায় তাকে নয়টি মিথ্যা ও বানোয়াট মামলা জড়িত করে বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতিগ্রস্ত ও তার পরিবারের পরিজনকে হয়রানি করা হয়।

সমাজসেবক মূলক অবদানঃ
★★ ধর্মীয় শিক্ষা ব্যাবস্থাসহ এলাকায় কলেজ, বহু মাধ্যমিক, প্রাথমিক বিদ্যালয়,  রেজিঃ প্রাথমিক বিদ্যালয়, কমিউটি প্রাথমিক বিদ্যালয়,ঈদগাহ, মসজিদ,মাদরাসা,  মন্দির, গীর্জা সহ অসংখ্যা প্রতিষ্ঠান স্থাপন করে এবং এখানো পর্যন্ত শিক্ষানুরাগী  হিসেবে সে আলোকে কাজ করে যাচ্ছে।

★★ ১৯৯৩ খ্রি. চৌগাছা পৌর এলাকার মধ্যে নিজস্ব তার পিতার নামে চৌগাছা হাজী সর্দার মত্তজ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে। বিদ্যালয়টিতে সহস্রধিক ছাত্র-ছাত্রী অধ্যিয়ন করে। বিদ্যালয়ের সীমানার মধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়, এবতেদায়ী মাদরাসা, মসজিদ, ঈদগাহ স্থাপণ ও বৃক্ষরোপন করে।

★★  ২০০০ খ্রি. চৌগাছা পৌর এলাকার মধ্যে নিজস্ব অর্থায়নে চৌগাছা *বেলা কিন্ডার গার্ডেন এবং প্রি ক্যাডেট* নামীয় স্কুল প্রতিষ্ঠা করে।

★★ ২০০৫ খ্রি. চৌগাছা পৌর এলাকার মধ্যে নিজস্ব অর্থায়নে  নিজ নামে চৌগাছা এস এম হাবিবুর রহমান পৌর কলেজ প্রতিষ্ঠা করে।  যা বর্তমানে ডিগ্রী কলেজ উন্নীত

 

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে