আমীর খসরুকে গ্রেফতারের নিন্দা!কাল বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ

0
798

আনিসুর রহমানঃ চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডাঃ শাহাদাত হোসেন বলেছেন, বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রন করে সরকার দেশে এক নৈরাজ্যকর অবস্থার সৃষ্টি করেছে। শেখ হাসিনার প্রতিহিংসার শিকার হয়ে দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে বন্দি করে রেখেছে। তারেক রহমান সহ বিএনপি নেতাদের ফরমায়েশি রায়ে সাজা দিয়ে সরকার বিএনপিকে ধ্বংস করতে চায়।

হাইকোর্টের জামিনে থাকা সত্তেও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীকে তথ্য প্রযুক্তি আইনের মামলায় চট্টগ্রামের আদালত জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়ে

দিয়েছে। আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর মতো পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদকে গ্রেফতার
ইতিহাসের এক ন্যাক্কারজনক ঘটনা । নেতাকর্মীদের গ্রেফতার নির্যাতন করে সরকারের শেষ রক্ষা হবে না। তিনি আজ ২১ অক্টোবর রবিবার বিকালে নগরীর নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয় মাঠে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির উদ্যোগে তারেক রহমানকে ফরমায়েশি রায়ে সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে কেন্দ্র ঘোষিত কালো পতাকা মিছিল ও সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে এ কথা বলেন। এতে ডাঃ শাহাদাত আরো বলেন, জাতীয় ঐক্য ফ্রন্ট গঠনের মাধ্যমে দেশের জনগণের নাগরিক ঐক্য হয়ে গেছে । এই সরকারকে বিদায় করতে বাংলাদেশের মানুষ এখন ঐক্যবদ্ধ। আগামী ২৭
অক্টোবর চট্টগ্রামের লালদিঘীর মাঠে ঐক্য ফ্রন্টের জনসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এই সমাবেশ হবে ভোটাধিকার, বাকস্বাধীনতা, মানুষের মৌলিক অধিকার ফিরে পাবার জন্য ও আমীর খসরুর মুক্তির জন্য। সরকার চট্টগ্রাম সহ সারাদেশে গণগ্রেফতার
ও গায়েবি মামলা এখনো অব্যাহত রেখেছে। আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী গ্রেফতারের
প্রতিবাদে আগামীকাল সোমবার বিকাল ৩টায় নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কাযালয়ে মাঠে
এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১১টায় সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি
নিয়ে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির পক্ষ থেকে দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ
সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।
কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হারুনুর রশিদ হারুন বলেছেন,
সরকারের মধ্যে এখন নি¤œ চাপ সৃষ্টি হয়েছে, এই চাপেই সরকারের সব তছনছ হয়ে
যাবে। সরকার তারেক রহমানকে সাজা দিয়ে হেয় প্রতিপন্ন করে সজীব ওয়াজেদ জয়কে
জনপ্রিয় করতে চাচ্ছে। এটা কখনো হবে না। চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র
সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান বলেন, গায়েবি মামলা দিয়ে গণগ্রেফতার করে কোন লাভ
হবে না। আমরা করাবরণ করার প্রস্তুতি নিয়েই মাঠে নেমেছি। শত অত্যাচার করেওবিএনপিকে ধ্বংস করা যাবে না। বিএনপি সম্পর্কে সরকারের ধারণা নেই । বিএনপি মানুষের ঘরে ঘরে, মানুষের হৃদয়ে। আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীকে গ্রেফতার করে
আন্দোলনের দাবানলকে উস্কে দিয়েছে। এই সব অন্যায় অপকর্মের বিচার একদিন
হবেই। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি‘র
সহ-সভাপতি আলহাজ¦ এম এ আজিজ, মো: মিয়া ভোলা, এডভোকেট আব্দুস সাত্তার,
হাজী মো: আলী, সি: যুগ্ম সম্পাদক এস এম সাইফুল আলম, যুগ্ম সম্পাদক কাজী
বেলাল উদ্দিন, মো: শাহ আলম, আবদুল মান্নান, জাহাঙ্গীর আলম দুলাল, কাউন্সিলর আবুল হাশেম, মঞ্জুর আলম মঞ্জু, আনোয়ার হোসেন লিপু, সাংগঠনিক সম্পাদক মনজুর আলম চৌধুরী মনজু। সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলামের পরিচালনায় আরো বক্তব্য রাখেন সহ সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহ আলম,সম্পাদকবৃন্দ এম আই চৌধুরী মামুন, হামিদ হোসেন, হাজী নুরুল আক্তার,দিদারুল আলম চৌধুরী, ইব্রাহীম বাচ্চু, জিয়া উদ্দিন খালেদ চৌধুরী, নগরমহিলা দলের সভাপতি কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগম, থানা বিএনপির সভাপতিবৃন্দ মনজুর রহমান চৌধুরী, মামুনুল ইসলাম হুমায়ুন, ছাইফুর রহমান বাবুল, কাউন্সিলর মোঃ আজম, সহ সাম্পদকবৃন্দ, মো: ইদ্রিস আলী, সফিক আহাম্মদ, নকিব
উদ্দিন ভূইয়া, আবুল খায়ের মেম্বার, আলী আজম, থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক
, হাজী বাদশাহ মিয়া, মহানগর বিএনপির সদস্য ফাতেমা বাদশাহ,কাউন্সিলর
জেসমিনা খানম, আলী ইউসুফ, ইউসুফ সিকদার, মহসিন চৌধুরী, শাহেদা বেগম, আখি
সুলতানা, নগর তাতী দল সভাপতি জাহাঙ্গির আলম, ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি
কাউন্সিলর ইসমাইল বালি, এস এম মফিজ উল্লাহ, কাজী সামশুল আলম, মো. আসলাম,
মো. হারুন, সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ আহমদ, মনজুর কাদের, হাসান ওসমান, মামুন
আলম, মোঃ হাসান প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে