বিশ্ব শিক্ষক দিবসে, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির আলোচনা সভায় আন্তর্জাতিক সমাজ বিজ্ঞানী প্রফেসর ড. অনুপম সেন

0
692

শিক্ষক ও শিক্ষকের যোগ্য মর্যাদা দিতে পারলেই দেশ ও বিশ্ব লক্ষ্যে পৌছাতে পারবে। একুশে পদক প্রাপ্ত আন্তর্জাতিক সমাজ বিজ্ঞানী ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, পৃথিবীর সকল উন্নয়নের পেছনে রয়েছে শিক্ষার অবদান। শিক্ষাই সকল উন্নয়নের চাবিকাঠি। যার কারিগর যোগ্য শিক্ষক। তাই শিক্ষা ও শিক্ষকের যোগ্য মর্যাদা দিতে পারলেই দেশ ও বিশ্ব লক্ষ্যে পৌঁছতে পারবে। একবিংশ শতাব্দির মানুষকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে একমাত্র যোগ্য শিক্ষক।
৫ অক্টোবর বিকেল ৫ ঘটিকায় নগরীর “কে.বি আব্দুল আজিজ মিলনায়তনে” বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি চট্টগ্রাম আঞ্চলিক শাখার উদ্যোগে বিশ্ব শিক্ষক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। এতে সভাপতিত্বে করেন সংগঠনের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ লকিতুল্লাহ। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অঞ্চল চৌধুরী। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শিমুল মহাজনের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা সুনীল চক্রবর্তী, বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ জাহাঙ্গীর, পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ চট্টগ্রাম এর সভাপতি ডা. এ কিউ এম সিরাজুল ইসলাম, চট্টগ্রাম টিচার্স ট্রেনিং কলেজের প্রশিক্ষক বিশিষ্ট শিক্ষা চিন্তক শামসুদ্দীন শিশির, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী। সভায় অন্যান্যদের মধ্যে জেলা নেতৃবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, নুরুল হক সিদ্দিকী, রনজিৎ নাথ, মোঃ ওসমান গনি, প্রদীপ কানুনগো, মোঃ জানে আলম, তাপস চক্রবর্তী প্রমুখ।
প্রধান অতিথি ড. অনুপম সেন বলেন, রাষ্ট্রের দায়িত্ব সবাইকে শিক্ষিত করা। জ্ঞান ও প্রযুক্তি দেশকে এগিয়ে নেয়। একজন শিক্ষক সমাজকে দায়িত্ব নিতে হবে। শিক্ষক সমাজের দাবীর সাথে একমত পোষণ করে তিনি বলেন, বৈষম্যের অবসানে রাষ্ট্রের মুখ্য দায়িত্ব পালন করতে হবে। আমাদের শিক্ষাকে যুগপোযোগী করতে বিশ্বের সাথে তাল মেলাতে যোগ্যতা সম্পন্ন শিক্ষক তৈরী করতে হবে।
সভায় বক্তারা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে শিক্ষকদের পেশাগত মর্যাদায়নে রাষ্ট্্েরর সথাযথ উদ্যোগ গ্রহণের দাবী জানান। শিক্ষা ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণ এখন সময়ের দাবি। টেকসই উন্নয়ন সহ দেশের বৃহত্তর স্বার্থে বিচ্ছিন্নভাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারিকরণ না করে একযোগে মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণ একান্তই জরুরী হয়ে পড়েছে। সরকার ঘোষিত জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণ সহ শিক্ষা ক্ষেত্রে সব বৈষম্য দূরীকরণ সহ “শিক্ষকের অধিকার শিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করণের আহ্বান জানান।
প্রসঙ্গত, ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দে ইউনেস্কো ও আইএলও’র যৌথ ঘোষণায় শিক্ষকের মর্যাদা রক্ষায় বাংলাদেশ সহ বিশ্বের একশটির বেশি দেশ স্বাক্ষর করে এবং ওই বছর থেকে ৫ অক্টোবর দিবসটি পালন করা হয়। সাংগঠনিকভাবে দিবসটি উদ্যাপন করলেও রাষ্ট্রীয়ভাবে দিবসটি উদ্যাপন করা হয় না।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: বাশিস, চট্টগ্রাম আঞ্চলিক শাখা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে