কমছে দেশের প্রধান নদ-নদীর পানি

0
114

অনলাইন ডেস্ক:দেশের প্রধান প্রধান নদ-নদীর পানি কমার কথা জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র। পাউবো বলছে, প্রধান প্রধান নদ-নদীতে পানি কমার প্রবণতা বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অব্যবাহত থাকবে। ফলে বুধবারের (৮ সেপ্টেম্বর) মধ্যে সিরাজগঞ্জ, পাবনা, মানিকগঞ্জ, রাজবাড়ী, ফরিদপুর, মুন্সিগঞ্জ এবং শরীয়তপুরের বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি অব্যাহত থাকবে।

তবে তিস্তার পানি ফের বাড়ছে। এ নদীর পানি ডালিয়া পয়েন্টের বুধবারের মধ্যে বিপৎসীমার কাছাকাছি পৌঁছাতে পারে।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া জানিয়েছেন, বর্তমানে ১০টি নদ-নদীর পানি ১৬টি জায়গায় বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যমুনার পানি কাজীপুরে বিপৎসীমার ১১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে, সিরাজগঞ্জে ৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে, মথুরায় ১২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে ও আরিচায় ১৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

 

আত্রাইয়ের পানি বাঘাবাঢ়িতে বিপৎসীমার ৪৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে, ধলেশ্বরীর পানি এলাসিনে ৫৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে, লক্ষ্যার পানি নারায়ণগঞ্জে ৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে, তুরাগের পানি কালিয়াকৈরে ২১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে, কালিগঙ্গার পানি তারাঘাটে ৩২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে ও ধলেশ্বরীর পানি জাগিরে ২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এছাড়া পদ্মার পানি গোয়ালন্দে বিপৎসীমার ৬১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে, ভাগ্যকূলে ২৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে, মাওয়ায় ২২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে ও সুরেশ্বরে ৬৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গড়াই নদীর পানি কামারখালীতে প্রবাহিত হচ্ছে ১০ বিপৎসীমার সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে এবং মেঘনার পানি চাঁদপুরে প্রবাহিত হচ্ছে বিপৎসীমার ৩৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে।

পাউবো জানিয়েছে, বিভিন্ন নদ-নদীতে তাদের পর্যবেক্ষণাধীন ১০৯টি স্টেশনের মধ্যে মঙ্গলবার পানির সমতল বেড়েছে ৩৪টিতে। কমেছে ৭২টি স্টেশনের পানির সমতল। তিনটিতে অপরিবর্তিত আছে। আর বিপৎসীমার ওপরে আছে ১৬ স্টেশনের পানির সমতল।

এদিকে, সাগরে লঘুচাপের প্রভাবে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বাড়ছে। মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হচ্ছে দেশের অভ্যন্তরে। বৃষ্টিপাত বেড়েছে দেশের সীমান্তবর্তী ভারতীয় অঞ্চলগুলোতেও। ফলে পাহাড়ি ঢলে ফের পানি বেড়ে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে দেশের উত্তর ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলে।

বিডি প্রতিদিন