স্পার আড়ালে গুলশান আগোরায় অনৈতিক বাণিজ্য

0
245

নিজস্ব প্রতিনিধিগুলশানে একাধিক স্পা সেন্টারে অভিযান চালিয়েছিল গুলশান থানা পুলিশ।এরপরই অনেকটা থমকে গিয়েছিল রাজধানীতে স্পার আড়ালে অনৈতিক বাণিজ্য তথা দেহ ব্যবসা।যাদের খদ্দের উঠতি বয়সের বৃত্তবান পরিবারের সন্তানসহ দেশি বিদেশি বিভিন্ন মহলের ব্যক্তিরা।এসব ব্যবসা ঘিরে প্রতিদিন লেনদেন হচ্ছে লাখ লাখ টাকা।শুধুমাত্র ট্রেড লাইসেন্স নিয়েই চলছে এধরনের প্রতিষ্ঠান।

গুলশানের আবাসিক ও অফিস পাড়ায় নামে বেনামে গড়ে উঠেছে অর্ধশতাধিক স্পা সেন্টার। স্পা সেন্টার গুলোতে বর্তমানে অবস্থানরত গুলশান থানার অফিসার ইনচার্জ বেশ কয়েকবার অভিযান চালিয়ে মামলাও দিয়েছেন। তবুও থেমে নেই এধরনের প্রতিষ্ঠানের রমরমা বাণিজ্য। ১১১নং গুলশান এভিনিউ, গুলশান আগোরা ভবনে আরএম সেন্টার ৪র্থ তলায়-হোয়াইট-২ (White-2) বিউটি সেলুন এবং স্পা’র আড়ালে চলছে রমরমা দেহ ব্যবসা

সেখানে ঘুরে দেখা যায় ভাল ব্যবসা করছে তারা। জন সমাগমও ভাল। বাইরে থেকে ভিতরে কি হচ্ছে তা কোনোভাবেই বোঝার উপায় নাই। বিভিন্ন রংয়ের আলোয় ঝলমল করছে স্পা সেন্টারটি। তবে বাইরের হালচাল দেখে বোঝার উপায় নাই এগুলো স্পা সেন্টার। আবার সেখানে রয়েছে স্কর্ট সার্ভিস। যাহা প্রতিটি রুম বহিরাগত কপত-কপতির জন্য ঘন্টা প্রতি ভাড়া হয়ে থাকে।

আবার খদ্দেরদের আকর্ষণ বাড়াতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারও চালায় তারা। সেখান থেকেই ফোন নাম্বারের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হয়। কোনো রকমের সন্দেহ হলেই ভুল ঠিকানা দিয়ে এড়িয়ে চলা হয়।

ফোনে পরিচয় গোপন রেখে তার নিকট জানতে চাওয়া হয় আপনারা কি ধরনের সার্ভিস দিয়ে থাকেন। তিনি প্রশ্নের জবাবে বলেন, এ্যারোমা অয়েল-২৫৫০ টাকা, থাই এ্যারোমা-৪০০০ টাকা, থাই টেডিশনাল-৩০০০ টাকা, এবং সব ধরনের ব্যবস্থা আছে। তাছাড়া আপনি যদি এক ঘন্টার অধিক সময় মেয়েদের সাথে সময় নিতে চান তাহলে ৫০% ডিসকাউন্ট পাবেন ও সব ধরনের মেয়েরাই এখানে রয়েছে। আপনার পছন্দ মত নিতে পারবেন। এদিকে তার নিকট পুলিশের ঝামেলা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন, আমরা প্রশসানকে ম্যানেজ করেই ব্যবসা করি। তাছাড়া আমরা গুলশানের মধ্যে ১ নাম্বার তালিকায় রয়েছি। তাই ঝামেলা হওয়ার প্রশ্নই উঠে না। প্রতিষ্ঠানের মালিক নয়ন ক্ষমতার দাপটে এর আগেও গুলশানে বেশ কয়েকটি স্থানে এধরনের প্রতিষ্ঠানের সাথে সমপৃক্ত ছিলো।

এধরনের হোটেল বা স্পা সেন্টারগুলো বৈধ না অবৈধ এমন প্রশ্নের উত্তরে গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ‘‘তারুণ্য বিডি ২৪ডটকমকে জানান, এসব বন্ধের ব্যাপারে আমরা কঠোর অবস্থানে আছি। আপনি আমাদের ঠিকানা দেন এখনি অভিযান পরিচালনা করে অবৈধ ব্যবসা বন্ধ করে দেওয়া হবে। (ধারাবাহীক সংবাদ, চলবে)