টাকা দিয়ে ও কর্ণফুলী গ্যাস পাচ্ছেন না ২৫ হাজার গ্রাহক

0
1004

আনিসুর রহমান: কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের অধীনে চট্টগ্রামে গ্যাস সংযোগের জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন প্রায় ২৫ হাজারের অধিক গ্রাহক। গোলো ৪ বছর ধরে চেষ্টার পরও এখনো গ্যাস সংযোগ পাননি তারা।

তাই নিরাপত্তা জামানত, সিটি কর্পোরেশন, সড়ক ও জনপথ এবং সংযোগ ফিসহ আবেদনকারী এসব গ্রাহকদের অবিলম্বে গ্যাস সংযোগ দেয়ার দাবি জানানো হয়েছে।  ১৯ সেপ্টেম্বর বুধবার সকাল ১১ টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের আবদুল খালেক মিলনায়তনে কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড ঠিকাদার কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড ঠিকাদার কল্যাণ সমিতির প্রেসিডেন্ট মো. ইকরাম চৌধুরী লিখিত বক্তব্যে জানান, অপেক্ষামান গ্রাহকগণ কেজিডিসিএলের অনুমোদন অনুাযায়ী প্রচুর অথ্য ব্যয় করে জি.আই.পাইপ দিয়ে আভ্যন্তরীণ পাইপ লাইন নির্মাণ করেছেন এবং কেজিডিসিএল কর্তৃপক্ষের সাথে চুক্তি সম্পাদন করেন। কেজিডিসিএল কর্তৃপক্ষ যথাসময়ে গ্যাস সংযোগ প্রদান না করায় গ্রাহকগণ ঠিকাদারদের সাথে অশোভন আচরণ, হয়রাণী, নাজেহালসহ অপমান ও অপদস্ত করছে বলে জানান। কেজিডিসিএলের তালিকাভূক্ত প্রায় ৪ শতাধিক ঠিকাদার নিয়মিত ট্যাক্স প্রদান করে সরকারের রাজস্ব খাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছে। কেজিডিসিএল কর্তৃপক্ষ কার্যকর ব্যবস্থা না নিয়ে বছরের পর বছর গ্যাস সংযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত রাখছেন গ্রাহকদের। এ কারণে গ্রাহকগণ ক্ষোভের বশবর্তী হয়ে ঠিকাদারগণকে হুমকী দিচ্ছে। এ কারণে ঠিকাদারগণ অসহায় অবস্থায় দিনাতিপাত করছে এবং তাদের সাথে সংশ্লিষ্ট কয়েক হাজার লোক কর্মহীন হয়ে পড়েছে। তারা অর্থিক অনটনে দূর্বিসহ জীবন যাপন করছে।তাই অবিলম্বে উদ্ভুদ সমস্যা সমাধানে দ্রুত চুলা বর্ধিতকরণ কাজ চালু এবং সিরিয়ালে থানা গ্রাহকগণের দ্রুত সংযোগ প্রদানের নির্দেশনা প্রদান করার জোর দাবী জানানটিকাদার কল্যাণ সমিতির নেতৃবৃন্দ। ৪০০ জন ঠিকাদারসহ আরও ২০০০ পরিবারের সদস্য গ্যাস সংযোগ কাজে জড়িত আছেন এবং তাদের আয়ের উপর তাদের পরিবারের ভরণ পোষণ নির্ভর করছে। আবাসিক খাতে বর্ধিত গ্যাস সংযোগ বন্ধ থাকায় তালিকাভুক্ত ঠিকাদারগণ পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। বক্তারা আরো বলেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর যুগান্তকারী পদক্ষেপে বহুল প্রত্যাশিত এল.এন.জি সরবরাহ করায় চট্টগ্রামের আপামর জনসাধারণ প্রধানমন্ত্রী, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়, পেট্রোবাংলা এবং কেজিডিসিএল সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন। আমরা এদেশের নাগরিক হিসাবে দাবী করছি অনতিবিলম্বে সকল ধরনের ইন্ডাস্ট্রি ও বাণিজ্যিকের সাথে আবাসিক সংযোগ প্রদান কার্যক্রম শুরু করার জন্য। উল্লেখ্য যে, ১ মিলিয়ন গ্যাস সমান দশ লক্ষ সিএফটি গ্যাস, ১টি ডাবল বার্নারে গ্যাস ব্যবহার করা হয় ২১ সিএফটি, বর্তমানে কেজিডিসিএল এর আবাসিক খাতে গ্যাস ব্যবহার হয় সর্বোচ্চ ৪০ মিলিয়ন, বিগত ০৪ বৎসর যাবৎ অপেক্ষমান আবাসিক গ্রাহকদের গ্যাস সংযোগ প্রদান সহ আবাসিক সংযোগ চালু করলে প্রতিদিন ৫০০ মিলিয়ন গ্যাস এর মাত্র ১০ থেকে ১২% গ্যাস আবাসিক খাতে ব্যবহার হবে। বক্তারা আরো বলেন, বর্তমানে এলপি গ্যাস কোম্পানীগুলো সরকারকে নানাভাবে ভুল তথ্য দিয়ে তাদের সিলিন্ডার ব্যবসা পরিচালনা করিতেছে। সিলিন্ডার কোম্পানীগুলো সিন্ডিকেট করে নানা অজুহাতে দাম বাড়িয়ে বিক্রি করে ফায়দা লুটছে এবং নিম্নমানের ঝুঁকিপূর্ণ সিলিন্ডার ব্যবহার করে বিস্ফোরন হয়ে অনেকে মৃত্যুবরণ সহ পঙ্গুত্ব জীবনযাপন করছে। পাইপ লাইনের মাধ্যমে প্রাকৃতিক গ্যাস ব্যবহার পরিবেশ বান্ধব এবং নিরাপদ। বর্তমানে সরকারের সিদ্ধান্তে কেজিডিসিএল কর্তৃপক্ষ গ্যাস সাশ্রয়ের প্রি পেইড মিটার স্থাপন কাজ শুরু করিয়াছেন। এমতাবস্থায় বাণিজ্যিক রাজধানী বন্দর নগরীর অবকাঠামো উন্নয়ন ও পরিবেশ বান্ধব শহর হিসাবে অবিলম্বে সকল ধরনের আবাসিক সংযোগ ও বর্ধিত করণ চালু করার লক্ষ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় সফল প্রধানমন্ত্রীর নিকট চট্টগ্রামবাসীর পক্ষে ঠিকাদার নেতৃবৃন্দগণ সবিনয়ে অনুরোধ জানিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নাজমুল হাসান চৌধুরী, হারুন, সফিকুল ইসলাম, দেলোয়ার হোসেন পাটোয়ারী, বায়েজিদ হোসেন ঢালী, ফারুক আকবর, মাহফুজুর রহমান।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে