জনগণের সরলতার সুযোগ নিয়ে সরকার ভাওতাবাজি করেছে: ড. কামাল

0
735

গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, জনগণকে দেশের মালিক হিসেবে রাষ্ট্রীয় সম্পদ, ব্যাংকের টাকা লুটপাট ও বন্ধ কলকারখানা চালুর বিষয়ে দায়িত্ববোধের পরিচয় দিতে হবে। একই সাথে ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিতে দেশের মালিক হিসেবে জনগণকে দেশের নিয়ন্ত্রণ নিতে হবে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় খুলনা শহীদ হাদিস পার্কে যুক্তফ্রন্ট আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আইনের শাসন, ন্যায় বিচার, অবাধ গণতন্ত্র ও জনগনের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার দাবিতে এই জনসভার আয়োজন করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) খুলনা জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট আ ফ ম মহসীন। বক্তৃতা করেন যুক্তফ্রন্ট নেতা ও জেএসডি সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরী, জেএসডি নেতা আব্দুল মালেক রতন।

জনসভায় বক্তারা সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিতে বৃহত্তর ঐক্যের আহবান জানান। একই সাথে নির্বাচনে রোডম্যাপ তৈরি, ইভিএম পদ্ধতি বাতিল, সকল রাজনৈতিক দলের নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ ও মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার বন্ধের দাবি জানানো হয়।

ড. কামাল হোসেন বলেন, ২০১৪ সালে জনগণের সরলতার সুযোগ নিয়ে সরকার ভাওতাবাজি করেছে, সংবিধানের অবমাননা করেছেন। তারা বলেছিল একটা পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য এই আয়োজন করা হয়েছে। দ্রুত জনগণের সাথে আলোচনা করে নির্বাচন দেওয়া হবে। তাদের এই কথার রেকর্ড রয়েছে। কিন্তু তারা নির্বাচনের আয়োজন করেনি।

আ স ম আব্দুর রব বলেন, ‘দলীয় শাসনের মাধ্যমে অনেক আগে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হত্যা করা হয়েছে। রাষ্ট্রের আজ দুর্দিনে জনগণের নিরাপত্তা নেই। আজ দেশের জনগণের স্বার্থেই বৃহত্তর ঐক্যের প্রয়োজন।’

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘এটা একটা পুলিশের দেশ। পুলিশ যা বলে তাই হয়। কারণ পুলিশ না থাকলে সরকার থাকে না। এই অন্যায়-জুলুমের বিরোধীতা করতে হবে। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম চালাতে হবে।’

বিডি-প্রতিদিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে