কমলনগরে বিদ্যুতের নামে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

0
839

অ আ আবীর আকাশ,লক্ষ্মীপুর: লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের চরমার্টিন এলাকায় বিদ্যুৎ দেয়ার নাম করে সাধারন গ্রাহকের কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, চরমার্টিন এলাকার আবুল বাশার খলিফাগো বাড়ীর হাজী আবুল বাশারের ছেলে আবদুর রহিম, একই এলাকার বাইলা গো বাড়ীর আমিন উল্লাহর ছেলে ছানা উল্লাহ, আনতিয়াগো বাড়ীর মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে শফিক মিলে সাধারন গ্রাহকের কাছ থেকে বিদ্যুৎ পাইয়ে দিবে বলে বিভিন্ন অংকের টাকা উত্তোলন করেন।

অভিযোগে আরো জানা গেছে, চরমার্টিন এলাকার ৫নং ওয়ার্ডের আমেনার বাপের বাড়ীর তাজল হকের ছেলে দোকানদার আবু তাহের (৩৫) এর কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা উত্তোলন করেন। এ ছাড়াও রুহুল আমীন মাঝি বাড়ীর রুহুল আমীন, মৃত নূর মোহাম্মাদ মাঝির ছেলে নূর আলম(৬৫),নাগর মাঝি বাড়ীর নাগর মাঝি ও ইসমাইল,তরক আলী সর্দারের ছেলে নূরু ড্রাইভার, আবদুল বাতেনের ছেলে বাবুল, নুরুল ইসলাম,হাজী ওসমান গণির ছেলে নুর করিম(৩৩),চানমিয়া বেপারী বাড়ীর চান মিয়ার স্ত্রী তাহেরা বেগম(৪৫),মজিদ মেম্বারের বাড়ীর মোসলেহ উদ্দিনের মেয়ে শাহীনুর, মোল্লা বাড়ীর আবদুর রব মোল্লা বাড়ীর কামাল হোসেন,রইজলের বাড়ীর রইজলের ছেলে আক্তার হোসেন,সর্দার বাড়ীর রুহুল আমীন সর্দারেরে স্ত্রী শাহীনুর বেগম অভিযোগ করেছেন তাদের কাছ থেকে এক হাজার, দুই হাজার, তিন হাজার এমনকি দশ হাজার বিশ হাজার টাকাও তুলে নিয়ে গেছে। টাকা নেয়ার বিষয়টা কারো কাছে প্রকাশ না করার জন্যও বলেছেন আবদূর রহিম।

স্থানীয় ভাবে বাড়ী বাড়ী গিয়ে টাকা কালেকশন করে একই এলাকার দুলালের স্ত্রী রুনা বেগম। অভিযোগের সময় সাংবাদিকের উপস্থিতি টের পেয়ে রুনা বেগম তাৎক্ষণিক নিজেকে আড়াল করে এবং অন্যদের টাকা লেনদেনের বিষয়টি না বলার জন্য হুমকিও প্রদান করে।
ভুক্তভোগী পরিবারের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানান, রহীম, ছানা উল্লাহ ও শফিক আমাদের বিদ্যুৎ দিবে বলে টাকা নেয়। আমরা সরল মনে বিশ্বাস করে বিদ্যুতের আশায় টাকা দিই।
জানা গেছে প্রতারক শ্রেনি ৬ ক্যাটাগরিতে টাকা উত্তোলন করে। ১.সার্ভে করার নাম করে, ২.খুঁটি গাড়ার সময়, ৩. তার তোলার সময়, ৪. মিটার লাগানোর সময়, ৫.ওয়ারিং করার সময় ও ৬.সংযোগ লাগানোর সময় টাকা ছাড়া যেনো একচুলও নড়তে চায় না।
অভিযুক্ত আবদুর রহিম, ছানা উল্লাহ ও শফিকের কাছে টাকা তোলার বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন -`টাকা সামন্য কিছু নিয়েছি, তা অফিসের লোকদের দিতে হয় বলে।’ অফিসের কাকে দিয়েছেন জানতে চাইলে আবদূর রহীম সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে যান।

এবিষয়ে পল্লী বিদ্যুৎ লক্ষ্মীপুর জেনারেল ম্যানেজার শাহজাহান কবির বলেন -যারা বিদ্যুতের নাম করে টাকা উত্তোলন করছে, আমরা তাদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করছি, দ্রুতই আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে