পঞ্চগড়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় হানাদার মুক্ত দিবস পালন

0
158

মোঃ সইনুল রহমান আকাশঃ পঞ্চগড়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হলো হানাদার মুক্ত দিবস।

( ২৯নভেম্বর) পঞ্চগড় হানাদারমুক্ত দিবস।

বাংলার দামাল ছেলেরা আজকের এই দিনে পাকিস্তানি সেনাদের হাত থেকে পঞ্চগড় কে মুক্ত করে বাংলাদেশের পতাকা উড়ায়।

যথাযোগ্য মর্যাদায় ও বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পঞ্চগড়ে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত হয়েছে।

দিবসটি উপলক্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য প্রদান, শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ভে পুস্পস্তবক অর্পণ, বধ্যভূমির বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, দোয়া ও মাহফিল আয়োজন করা হয়।

জেলা প্রশাসক ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের আয়োজনে এসব কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধ চলার পর মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনীর সাঁড়াশি আক্রমণে বাংলাদেশের ১৯৭১ সালের ২৯শে নভেম্বর এই দিনে পঞ্চগড় পাক হানাদার বাহিনীর হাত থেকে মুক্ত করে।

পাকিস্তানি সেনাদের হাত থেকে প্রথম মুক্ত হয় এই অঞ্চল ।

২৯ নভেম্বর পঞ্চগড়ে প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে দেওয়া হয়।

সেই থেকে আজও দিনটিকে স্মরণ করেছে পঞ্চগড় জেলা বাসী।

আজ সকাল ০৯ টায় সার্কিট হাউস চত্বরে বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে পুস্পস্তবক অর্পনের মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন শুরু হয় ৷

পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উদ্যোগে পরে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মূতিস্তম্ভে বঙ্গভূমির বেদীতে পুস্পস্তবক অর্পণ ও পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয় ৷

পরে জাতীয় শহীদ মিনারে পঞ্চগড় হানাদারমুক্ত দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক ডা,সাবিনা ইয়াসমিন, পুলিশ সুপার মোঃ ইউসুফ আলী, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল আলিম খান ওয়ারেসি,
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুল মান্নান, পৌর মেয়র তৌহিদুল ইসলাম, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আলাউদ্দীন প্রধান, উৎ আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো: আজাদ জাহান, এসময় জেলা পর্যায়ে সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার পরিবারবর্গর সহ গণমাধ্যম ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে