চাকুরি জাতীয়করন ও কর্মঘন্টা নির্ধারন, বেতন বৈষম্যের দাবীতে দপ্তরীদের মিরপুর প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ঘেরাও

0
142

মোঃ হারুনুর রশিদ – প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সামনে, দপ্তরীদের চাকুরি জাতীয়করন, বেতন বৈষম্য ও কর্মঘন্টা নির্ধারনের দাবীতে, মিরপুর প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ঘেরাও করেন।

এ সময় দপ্তরিরা বলেন,আমাদের চাকুরি জাতীয়করনেরর ঘোষনা না দেওয়া পর্যন্ত, আমরা ফিরে যাবোনা। বিগত কয়েকবার আমরা মানববন্ধন করলে,আমাদের মিথ্যা দিয়ে ফিরিয়ে দেন।আমাদের বেতন বৈষম্য ও কর্মঘন্টা নির্ধারন করে দিবেন বলে, আমাদের মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে ফিরিয়ে দেন।আজ আমাদের কোন মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে ফিরিয়ে দিতে পারবেনা,হয়ত আমরা মরবো,না হয় আমাদের গুলি করে মেরে ফেলেন,আমরা আমাদের দাবী আদায় না করে ফিরে যাবোনা।

দপ্তরীরা বলেন,গত বছর মহামান্য হাইকোর্ট আমাদের চাকুরী ও কর্মঘন্টা ছয় মাসের মধ্যে নির্ধারনের জন্য রায় দিলে ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর আমাদের পক্ষে কোন কাজই করেনি।

বরং আমরা কোন মানববন্ধন বা কোন কর্মসূচী ডাক দিলে,আমরা যেন কোন আন্দোলন কর্মসূচী না করতে পারি, সে জন্য পরিপত্র জারী করেন।

আমাদের কর্মসূচীর বিরুদ্ধে শুক্রবার ও পরিপত্র জারী করতে পারলে,আমাদের চাকুরি জাতীয়করন,কর্মঘন্টা নির্ধারন ও বেতন বৈষম্যেরর পক্ষে কেন দ্রুতগতিতে পরিপত্র জারী করতে পারেন না,আমরা এর জবাব চাই।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সামনে কানায় কানায় ভরে উঠে,দপ্তরিদের মানববন্ধন,দীর্ঘক্ষন রাস্তাটি বন্ধ করে দেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের রোডটি।

মানববন্ধন চলাকালীন সময় প্রাথমিক শিক্ষা মহাপরিচালক করোনায় আক্রান্ত হয়ে,বাসায় থাকায়,অতিরিক্ত মহাপরিচালক জনাব আতাউর রহমান স্যার, সকলকে নিয়ে দ্রুতগতিতে, আলোচনা সভায় বসে,দপ্তরীদের দাবীদাওয়া যুক্তিসংগত বলে,তাদের এই বিষয়টি দ্রুতগতিতে সমাধান করবেন বলে,আলোচনা করা হয়।

পরে বেলা ২টার সময় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ও প্রশাসন এবং দপ্তরীদের নেতৃবৃন্দ নিয়ে,সমাবেশের সামনে এসে ঘোষনা দেন,আমরা আগামী ৩০শে আগস্ট থেকে আগামী ৭সেপ্টেম্বর-২০২০ইং এর মধ্যে আপনাদের, সমস্যার সমাধান করবে বলে আশ্বাস দিয়ে, জরুরী ভিত্তিতে একটি চিঠি ইস্যু করেন।

জানাজায় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সামনে মানববন্ধন ও অবস্হান কর্মসূচী চলাকালীন সময়, কয়েক জন দপ্তরী অসুস্হ হয়ে গেলে, দ্রুতগতি পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায়, ঢাকা একটি কমিউনিটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করিয়াছেন।

পরে দপ্তরীদের চাকুরি জাতীয়করন, কর্মঘন্টা নির্ধান ও বেতন বৈষম্য দ্রুতগতিতে সমাধান দিবে বলে আশ্বাস পাওয়ার পর তারা মানববন্ধন অবসহান কর্মসূচি ত্যাগ করে চলে যান।

পরে নেতারা আরোও বলেন,আগামী ৭ তারিখের মধ্যে যদি আমাদের দাবী দাওয়া না মানা হয়,তাহলে লাগাতার কর্মসূচির ডাক দিবেন বলে জানান।

Leave a Reply