ছাত্রনেতা জহিরুল ইসলাম’র নেতৃত্বে কৃষকের ধান কেটে ঘরে পৌঁছে দিল উপজেলা ছাত্রদল।

0
580

রুহুল আমিন খাঁন স্বপনঃ ফরিদগঞ্জ পৌরসভার ৩নং ওয়াডের কৃষক হারুনের পাশে দাঁড়ালো উপজেলা ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা।
ধান কাটার শ্রমিক না পাওয়ায় উপজেলার গরিব ও বর্গা চাষিদের পাকা ধান কেটে দিচ্ছেন তারা। (শনিবার ২মে) থেকে ফরিদগঞ্জ পৌরসভা হতদরিদ্র কৃষক হারুনের প্রায় ২০ শতক জমির পাকা ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দেন তারা।
ধান কাটতে আসা উপজেলা ১৬ নং রূপসা (দঃ) ইউনিয়নের ছাত্রদলের সভাপতি মোঃ জহিরুল ইসলাম বলেন, ‘এটা আহামরি কোনও বিষয় নয়। আমরা আদর্শিক রাজনীতি আর প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভালোবাসার প্রতীক সোনার বাংলার ধান আজ নষ্ট হচ্ছে কেবল শ্রমিক না পাওয়ার কারণে। ধানের শীষের প্রতি আন্তরিক ভালোবাসা ফসলের জমিতে শ্রম দিতে আসতে বাধ্য করেছে।’
১৬ নং রূপসা (দঃ) ইউনিয়নের ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মোঃ রুবেল খাঁন বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে জাতি এক ধরনের ক্রান্তিকাল পার করছে। এমন সংকটেই যদি সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতে না পারি তাহলে আমাদের রাজনীতি অর্থহীন।’
এ সময় ফরিদগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের সভাপতি প্রার্থী মোঃ পারভেজ হোসেন জানান, দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে গরিব চাষিদের ধান কেটে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি এবং এটা চলমান থাকবে।
জমি থেকে ধান কাটায় অংশগ্রহণ করেন ফরিদগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ ছাত্রদল নেতা মনির হোসেন, নাঈম হোসেন, রনি হোসেন, পৌর ছাত্র নেতা ফুয়াদ হোসেন, শিহাব হোসেন ইউনিয়ন ছাত্রদলনেতা মাহফুজ হোসেন, রাসেল হোসেন, ১৫নং ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রুবেল হোসেন, সহ-সভাপতি রিপন হোসেন, ১৪ নং ইউনিয়ন ছাত্রদল নুরুদ্দিন হোসেন। আসিফ হোসেন, ১১নং ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক সোহাগ হোসেন, সহ-সাংগঠনিক রাশেদ হোসেন, কামাল হোসেন, ২নং বালীথুবা ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ফয়সাল হোসেন, ৭নং ইউনিয়ন ছাত্রদলের মোঃ নজরুল ইসলাম ঋতুন ও প্রমূখ।
কৃষক হারুন জানান, ‘ধান কাটা নিয়ে খুব চিন্তায় ছিলাম। হঠাৎ ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা ধান কাটতে আসবে বিশ্বাসই হচ্ছিল না। যেখানে দ্বিগুণ পারিশ্রমিক দিয়ে শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না সেখানে তারা বিনাস্বার্থে আমার দেড় ২০শত জমির ধান কেটে দিয়েছে। এছাড়া ধান বাসায় পৌঁছাই দিয়েছে তারা। তাদের পাশে পাওয়ায় সত্যিই আমি আনন্দিত।’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে