”ছাত্রদের মুখে একটি নাম আব্দুল আহাদ”

6
1206
চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের উপ গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক মো. আব্দুল আহাদ।

চট্টগ্রাম সিটি কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতির বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র ও চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের উপ গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক মো. আব্দুল আহাদ।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আহাদ ১৯৯৯ সাল থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। স্কুল জীবন থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িয়ে পড়েন। আওয়ামী লীগ মতাদর্শের পরিবারে জন্ম নেয়ায় ছোট বেলাতেই ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করেন। ২০০০ সালে সাতকানিয়া উপজেলার খাগরিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন তিনি। ২০০২ সালে হন সাধারণ সম্পাদক।

২০০৪ সালে খাগরিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক নির্বাচিত হন। এরপর ভর্তি হন সরকারি সিটি কলেজে। সেখানে অধ্যয়ণরত অবস্থায় ২০০৭ সালে এনায়েত বাজার ওয়ার্ড ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক নির্বাচিত হন।

এরপর সর্বশেষ ২০১৩ সালে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের উপ-গণ শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদকের পদ লাভ করেন। তার পিতা মৃত মাওলানা আমিনুল হক চর খাগরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। মা ফরিদা বেগম গৃহিণী। তার মামা মোহাম্মদ আকবর আলী চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের সদস্য হিসাবে আছেন।

৭ ভাই ৪ বোনের মধ্যে তিনি পিতা-মাতার পঞ্চম সন্তান। ২০১৩ সালে যখন যুদ্ধাপরাধী দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীর রায় ঘোষণা করা হয় তখন জামাত-শিবিরের হাতে মারাত্মকভাবে আহত হন আহাদ। তবুও পিছু হটেননি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে রাজনীতি করে যাবেন বলে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন। ২০১৩ সালে হেফাজত ইসলামের তান্ডবের বিরুদ্ধে চট্রগ্রামের জামাল খানে প্রথম প্রতিরোধ গডে তুলেন,এবং দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রতিহত করেন, মনোনয়নপত্র সংগ্রহের বিষয়ে জানতে চাইলে আব্দুল আহাদ জানান, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে মনোনয়নপত্র সংগ্রহের মধ্যে চট্টগ্রামের তৃণমূল ছাত্রলীগ থেকে উঠা আসা একমাত্র প্রার্থী আমি।

যদি সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হই তাহলে ছাত্রলীগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের আদর্শ বাস্তবায়নে কাজ করব। কারণ ছোটবেলা থেকেই আমি ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। আমার পরিবারের সবাই আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের রাজনীতি করে এসেছেন।

আনিসুর রহমান(চট্টগ্রাম)

6 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে