‘খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের মা’: আমির খসরু

0
503

খালেদা জিয়াকে গণতন্ত্রের মা আখ্যা দিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন,সরকার চরম হতাশা ও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।এসময় তিনি আরো বলেন,বিএনপিসহ ২০ দলের মধ্যে কোনো হতাশা নেই,হতাশা সরকারি দলে এবং তাদের হতাশা এমন পর্যায়ে গেছে যে তারা পথ খুঁজে পাচ্ছে না, কোন পথে চলবে?

আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয় দল আয়োজিত গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, স্বাধীনতা সুসংহত, আইনের শাসন ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য করণীয় শীর্ষক আলোচনা সভায় আমীর খসরু এসব কথা বলেন।

খসরু বলেন, ‘আওয়ামী লীগের আচরণ শুধু অগণতান্ত্রিক ও স্বৈরাতান্ত্রিক নয়, তাদের আচরণ ফ্যাসিজমে পৌঁছে গেছে। এটা নিরাপত্তাহীনতার একটি লক্ষণ। এই ধরনের একটি দল যখন নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে, জনগণকে ভয় পায় তখন তারা জনগণের অধিকার কেড়ে নিতে চায়। যেরকম ভাবে বর্তমান সরকার দেশের মানবাধিকার, বাক স্বাধীনতা, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে। মানুষের সর্বশেষ আশ্রয়স্থল বিচার বিভাগকেও প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। সকল প্রতিষ্ঠানগুলোকে তারা ধ্বংস করে দিয়েছে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য বলেন, ‘আওয়ামী লীগের অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে তারা যুদ্ধে নেমেছে। যে পথে তারা যাচ্ছে তা কিন্তু স্বৈরশাসকের পথ। একদলীয় শাসকের পথ। এই পথে জনগণ আরো নিষ্পেষিত, নির্যাতিত হতে হয়। আর এই পথই সরকার বেছে নিয়েছে। আর তাই আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে তাদের একমাত্র পথ হচ্ছে নিপিড়ন নির্যাতনের পথ। গুম, খুন, হত্যা, জেল, জুলুমের পথ।’

আমীর খসরু বলেন, নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকার যে প্রকল্প হাতে নিয়েছে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হলে জনগণকে বাইরে রেখে, খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে নির্বাচন করতে হবে। কারণ জনগণের ভোটের অধিকারের জন্য খালেদা জিয়া আন্দোলন করছেন। তাই তাকে বন্দি করে রাখা হয়েছে।

সাবেক এ বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া হলেন আপসহীন নেত্রী। তিনি আজকে গণতন্ত্রের মা উপাধি পেয়েছেন। দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠায় তিনি আজ জেলে গিয়েছেন। দেশের মানুষের নাগরিক অধিকার ফিরে পেতে তিনি কারাবরণ করেছেন।’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষ আজ বদ্ধপরিকর। আমরা যে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করেছি তাতে তারা পূর্ণ সমর্থন জানিয়ে কেউ আমাদের সঙ্গে হাঁটছে, কেউ পিছে বা কেউ পাশে হাঁটছে। কিন্তু লক্ষ্য একটাই সেটা হলো বাংলাদেশে আবারও গণতন্ত্রপুনরুদ্ধার করতে হবে। আমরা সেই পথে সফল হবোই এবং গণতন্ত্রের মা বেগম খালেদা জিয়া শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের গণতন্ত্রের মা হিসেবে বিশ্বের কাছে স্বীকৃতি পাবেন।’

আয়োজক সংগঠনের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহ্সানুল হুদার সভাপতিত্বে সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন মোস্তোফা জামান হায়দার, এলডিপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তোফা ভূইয়া, লেবার পার্টির (একাংশের) হামদুল্লাহ আল মেহেদী, এনডিপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ঈসা, জাতীয় দলের মহাসচিব মো. রফিকুল ইসলাম, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন।

Leave a Reply