আঠারো কোপ খাওয়া আবু ছায়েদ এখনো আ.লীগ ভালোবাসেন!

0
626

অ আ আবীর আকাশ,লক্ষ্মীপুর:
নির্যাতিত, ত্যাগী একজন আওয়ামীলীগকর্মী সৈয়দ আবু ছায়েদ। আওয়ামীলীগ পরিবারের জন্ম। রাজনৈতিক মতাদর্শে আওয়ামী লীগ ঘরানার হওয়ায় সন্ত্রাসীরা তার ঘরবাড়ি ভাঙচুর লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করে। ১৯৮৪ সালে বঙ্গবন্ধুর ছবি সাজিয়ে ক্লাব ঘর দেয়ায় তাকে ও তার পরিবারকে বেধড়ক মারধর করে দুর্বৃত্তরা। ১৯৯৬ সালে সন্ত্রাসীরা ধারালো চেনি দিয়ে আঠারোটি কোপ দেয়। সন্ত্রাসীরা তাকে মৃত ভেবে রাস্তার পাশে জঙ্গলে ফেলে যায়। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসা করায়। ২০০১ সালে তৎকালীন দলীয় সন্ত্রাসীরা তাকে বাড়ি ছাড়া করে তার বসত ঘর ভেঙে নিয়ে যায়।

১৯৭২ সাল থেকে ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কমিটি দিয়ে তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে নিজেকে উজ্জীবিত করে রাজনীতি শুরু করেন। সৈয়দ আবু সায়েদ ইউনিয়ন ছাত্রলীগ স্বেচ্ছাসেবক লীগ যুবলীগ হয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করছেন। তিনি উত্তর জয়পুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন দীর্ঘ ২০বছর ধরে। হামলা মামলা ও নির্যাতনের শিকার হয়েও দক্ষতা আর মেধা দিয়েই সৈয়দ আবু ছায়েদ আওয়ামী লীগকে আঁকড়ে ধরে আছেন।

সম্প্রতি সদর উপজেলা আওয়ামীলীগ সেক্রেটারী আবুল কাশেমের কাছ থেকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে ফরম সংগ্রহ করেছেন। আবু ছায়েদ মনে করেন তিনি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সম্পাদক মনোনীত হলে অত্র ইউনিয়নের সকল অঙ্গ সংগঠনের সমন্বয়ে আরো শক্ত অবস্থানে নিয়ে যেতে পারবেন। দলের সকল অপূর্ণতা পূর্ণ করে দলকে সুসংগঠিত করে আরো গতিশীল করে গড়ে তুলতে পারবেন। তিনি তার ইউনিয়নের সর্বস্তরের নেতাকর্মীর সহযোগিতা চেয়েছেন।

সৈয়দ আবু ছায়েদের পিতা মৃত কেরামত আলীও ছিলেন একনিষ্ঠ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক। আট ভাই দুই বোনের মাঝে সৈয়দ আবু ছায়েদ ষষ্ঠ। ব্যক্তিজীবনে তিনি এক পুত্র সন্তানের জনক বারবার নির্যাতনের শিকার সৈয়দ আবু ছায়েদের বাড়ি লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জ থানার উত্তর জয়পুর ইউনিয়নের দক্ষিণ কালিদাসেরবাগ গ্রামে। বর্তমানে তিনি ফার্মেসী ব্যবসা দিয়ে জীবন জীবিকা নির্বাহ করছেন।গ্রামকে আলোকিত করার জন্য দক্ষিণ কালিদাসেরবাগ সমাজ কল্যাণ কিন্টার গার্ডেন প্রতিষ্ঠা করেছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে