অহর্নিশ ভালোবাসা

0
1264
কবি: নিলুফার ইয়াসমিন

নিলুফার ইয়াসমিন

(সাহিত্যকথা)

কী অদ্ভূত মানব তুমি!
মানব! নাকি মহা-মানব?
কিছুই যেন বুঝে উঠতে পারিনা আমি!
মনে হয়! তুমি যেন কোন ধ্যান মগ্ন ঋষি !!!
কখনও ধ্যান ভঙ্গ হয় তোমারও
শুধু এ টুকু বলতে ; অনেক ভালোবাসি।

বাসনার সু- তীক্ষ্ণ তীর ছুঁড়ে;
অবিরত আঘাত করতে থাকো আমারি হৃদয়ে।
কে আমি? আর কে বা তুমি?
অবিরত প্রশ্ন জাগে মনে।
কেনোই বা আসো! আবার কেনোই বা চলে যাও!
ভাসিয়ে আমাকে অথৈ জলে।

একটু স্নিগ্ধতা আর শান্তির খোঁজে;
তুমি ছুটে আসো যেথা।
এই সদ্যজাত কুমারীর বুকে নোয়াতে মাথা।
তোমার আগমন টের পেয়ে ;
সব বাঁধাকে উপেক্ষা করে;
সে তোমারি দিকে যায় ধেঁয়ে!!
তবুও তোমার ফিরে যাওয়া।
কিসের এতো দ্বিধা তোমার?
ভালোবাসো যদি যদি তবু কেন ফিরে যাও শেষে?
তোমারি গোপন প্রেমে;
সে ধুকে ধুকে মরে অবশেষে।

বড় গর্ব করে বলো তুমি!
আমি এক তরঙ্গিনী।
ধন্য হও! শুদ্ধ হও!
আমারি গোপন প্রেমে তুমি।

উদ্দেশ্য একই বলে দেখা হয় অবিরত;
একই মন্দিরে পূজোর ফুল দিতে গিয়ে।
তোমারি তৈরী ক্যাম্পাসে;
মনের মাধুরী মিশিয়ে তোমাকেই আঁকি আমি
আমার রঙ্গিন ক্যানভাসে।
আমার এলোমেলো আঁকা ছবি
কেউ না বুঝুক! আমি জানি!
তুমি তার সবটুকুই তো বোঝো!!
তবে কেন বুঝতে পারোনা;
তোমাকে কতোটা ভালোবাসি আমি।

বুঝতে চাওনা তুমি! তোমার নিরবতা ;
কতোটা ক্ষত বিক্ষত করে আমাকে।
বুঝতে চাওনা তুমি! তোমাকে ছাড়া;
কীভাবে কেটে যায় আমার সারাটি বেলা।
কেন যেন এক অযৌক্তিক ভাবনা পেয়ে বসে তোমাকে।
তুমি ভাবো! আমি করুণা করি তোমায়!
আর আমি ভাবি!
আমার জন্য অবারিত ঘৃণা তোমার।
কেন এতো দ্বিধা- দ্বন্দ্ব আজ দু’ জনেরই মাঝে?
কেউ তো অস্বীকার করতে পারবো না আমরা;
একটু একটু করে ভালোবাসার ভ্রুন সৃষ্টি হচ্ছে-
দু’ জনেরই মাঝে।
শুধুই অপেক্ষা দুজনের! কবে রূপান্তর ঘটবে-
সেই অহর্নিশ ভালোবাসার।
কেন এতো ভয়?
কেন মেনে নিতে কষ্ট হয়?
আমরা দু’ জন একাকার হতে চাই!
সেই অহর্নিশ ভালোবাসায়।।।

আরো পড়ুন : অন্যের চোখে হয়ে উঠুন সম্মানের পাত্র

সাহিত্যকথা পরিষদ এর স্থায়ী কমিটি গঠন, সভাপতি-শাহানাজ পারভীন শাহিন, সাধারণ সম্পাদক-স্বাধীন বাবু

কবিতা – অবাধ বিচরণ

 

 

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে