মুন্সীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনারোধেপিটিআই শিক্ষক কর্মশালা ও সনদবিতরণ

0
639

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি: মুন্সীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনারোধে পিটিআই শিক্ষক কর্মশালা, সনদ বিতরণ ও
আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। নিরাপদ সড়ক চাই টঙ্গীবাড়ি উপজেলা শাখার
উদ্যোগে মুন্সীগঞ্জ প্রাইমারী ট্রেনিং ইনষ্টিটিউটে সোমবার দিনব্যাপী
কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালা শেষে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ১৯১ জন শিক্ষকের মাঝে সনদ
বিতরণ করা হয়। সনদ বিতরণের পূর্বে আলোচনাসভায় মুখ্য আলোচক হিসেবে
বক্তব্য রাখেন নিরাপদ সড়ক চাই এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস
কাঞ্চন।

প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম
পিপিএম (বার)। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ
হাসপাতাল শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ মোঃ আবু ইউসুফ ফকির,
মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মাহবুব আলম, মুন্সীগঞ্জ
পিটিআই সুপারিনটেনডেন্ট মোঃ কামরুজ্জামান, নিসচা কেন্দ্রীয় কমিটির
ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ শামীম আলম দিপেন, নিসচা কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ন
মহাসচিব লিটন এরশাদ, লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল, নিসচা কেন্দ্রীয় কমিটির
সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ হোসেন ও নিসচা কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-
সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহমান। কর্মশালায় প্রশিক্ষণ প্রদান করেন নিসচা
কেন্দ্রীয় কমিটির মহাসচিব ও প্রধান প্রশিক্ষক আলহাজ্ব রোটারিয়ান সৈয়দ
এহসান-উল হক কামাল। অনুষ্ঠানটিতে সভাপতিত্ব করেন নিসচা টঙ্গীবাড়ি শাখার
সভাপতি এম জামাল হোসেন মন্ডল এবং সঞ্চালনায় ছিলেন নিসচা টঙ্গীবাড়ি
শাখার সাধারণ সম্পাদক মোঃ সাইফুর রহমান।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জায়েদুল আলম পিপিএম বলেন, আজকের প্রশিক্ষণটি
সঠিক জায়গাতেই দেওয়া হয়েছে। কারণ, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা হলেন
মানুষ গড়ার কারিগর। শিক্ষকদেরকেই শিক্ষার্থীরা বেশি অনুসরণ করে থাকে। শিশু
বাবা মায়ের চেয়ে শিক্ষকদের কথাকেই প্রাধান্য দিয়ে থাকে। আপনারা যদি শিশুদের
ছোটবেলা থেকেই নিরাপদ সড়কের বিষয়ে শিক্ষা দেন তাহলে তারা সেই
বিষয়টিকেই অনুসরণ করবে এবং নিরাপদ সড়কের আইন মেনে চলতে অভ্যস্থ হবে।
মুখ্য আলোচকের বক্তব্যে চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, সরকার নিরাপদ সড়ক
আইনটি সংসদে পাশ করেছে। আগামী ১ তারিখ থেকে আইনটি কার্যকর হবে।
কিছু জটিলতার কারণে ইন্স্যুরেন্স ভিকটিমদের দায়িত্ব নিচ্ছে না। উন্নত দেশে
যেখানে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতি লক্ষে ২/৩ জন নিহত হয়। কিন্তু বাংলাদেশে সেখানে
প্রতি লক্ষে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রায় ৬৫ জন নিহত হচ্ছে। আপনারা অবশ্যই আইনটি
মেনে চলবেন। এ আইনে মালিক ও সরকার মিলে একটি ট্রাস্ট গঠন করা হয়েছে। যে
ট্রাস্টের মাধ্যমে ভিকটিমকে সহযোগিতা করা যাবে। এ আইনের আওতায় সরকার ৩

লক্ষ চালককে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। চালকরা যেন এ প্রশিক্ষনে উদ্বুদ্ধ হয়
সে জন্য সরকার প্রত্যেককে একবেলা খাবার ও কনভেন্স এর ব্যবস্থা করেছে। আপনারা
দেশকে ভালবাসেন, দেশের প্রতি অনুগত থাকেন এবং দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে
সহযোগিতা করুন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে