আজও বাজে পাঞ্চজন্য

0
781

আজও বাজে পাঞ্চজন্য
সুজাতা দাস

আজও বাজে পাঞ্চজন্য শ্রী কৃষ্ণের হাতে-
কাঁদে পাঞ্চালী আজও পুত্রশোকে কুরুক্ষেত্রের মাঝে-
যুদ্ধ জয় করতে শুধু কী কুরুক্ষেত্রেরই প্রয়োজন!!
অন্তরাত্মা জেতার যুদ্ধ কম কিসে, বলো এখন-
যা প্রতিনিয়ত নিজেকে খুঁজতে গিয়ে চলতে থাকে-
এই যুদ্ধে হয়তো হারায় না কোনও স্বজন
কিন্তু ক্ষতবিক্ষত হয় মন,
অন্তরাত্মা ছিন্নভিন্ন হয় শরীরটা ভেঙেপড়ে,
সাবলম্বন ভাঙে,আত্মদাম্ভিকতা চুরচুর হয়ে যায়;
তবুও বাঁচতে ইচ্ছে করে, বলতে হয় আমি ভালোআছি-
হিসেব নিকেশের গরমিল গুলো, ঢাকতে থাকি প্রতিনিয়ত-
বেজে ওঠে পাঞ্চজন্যের শঙ্খনাদ চতুর্দিক কাঁপানো-
কেঁপে ওঠে বুক নতুন করে, সব হারানোর ব্যথায়-
এযুগেও সারথি হয় শ্রীকৃষ্ণ কোনও গাণ্ডীবধারীর সহায়-
ইন্দ্রপতন ঘটে বড় বড় মহারথীর-
শরশজ্জায় শায়িত হন এখনও কোনও ভীষ্ম-
এখনও শিখন্ডীর দরকার পরে যুদ্ধজয়ের জন্য-
বেঁচে যান এখনও অর্জুন নাগাস্ত্র থেকে কৃষ্ণের সহায়তায়-
গ্রাস করে এখনও মেদিনী, কোনও কর্ণের রথের চাকা;
এখনও লাঞ্ছিতা দ্রৌপদীর সামনে, পুরুষ নত করে মাথা-
আজও মহাভারত রচিত হয় প্রতিটি সংসারে-
কুরুক্ষেত্রেই শেষ হয়,বেজে ওঠা শঙ্খনাদে-
সব হারানোর ব্যথায় কাঁদেন শতপুত্রের জননী-
আজও কাঁদেন কুন্তীরা, নিরবে কর্ণের লাগি-
ধৃতরাষ্ট্রের শ্নেহের অন্ধত্ব, অন্ধকার আজও ডেকে আনেন- দ্রৌপদীরাই কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধের কারন হয়ে থাকেন।।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে