বাগমারায় সরকারী জমিতে ইটভাটা ও খাল ভরাটের অভিযোগ

0
756

রাকিবুল হোসেন পায়েল: রাজশাহী বাগমারায় সরকারী জায়গায় জবরদখল করে এক
প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে অবৈধ ইটভাটা নির্মান ও খাল ভরাটের
অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ প্রভাবশালীর
বিরুদ্ধে কেউ কোন কথা বললেই তাকে নানা ভাবে হয়রানী
ও নির্যাতনের শিকার হতে হয়। সরকারের কিছু দপ্তরের অবৈধ
সুবিধা ভোগীর সহযোগীতার কারনেই তিনি সরকারী সম্পত্তি
জবরদখল ও পানি নিস্কাশনের জন্য ব্যবহৃত খালটি ভরাট করছেন।
এত কিছু করার পরেও ওই প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে সরকারের
কোন মহলের তৎপরতা লক্ষ্য করা যায়নি।
খোঁজ নিয়ে যায়, উপজেলার যোগীপাড়া ইউনিয়নের
শান্তপাড়া গ্রামের প্রভাবশালী স্বর্ণ ব্যবসায়ী আবুল কালাম
(কলম) ভটখালী নামক স্থানে প্রায় ১৫ বছর পূর্বে সরকারী
খাস জমি জবরদখল করে ইটভাটা নির্মান করেন। সপ্তাহের
সোমবার ও শুক্রবার ভটখালী দহের হাট নামে একটি বাজার
বসত। স্থানীয় লোকজন ওই বাজার থেকে তাদের সংসারের
প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ক্রয় করতেন। কিন্তু কলম ইটভাটা
নির্মানের পর থেকেই এলাকার লোকজনকে বিভিন্ন ভাবে
ভয়ভীতি দেখিয়ে ভটখালী দহের বাজার বসতে বাধা
দিতো। লোকজন তার ভয়ে ভটখালী পাঁকা রাস্তায় বাজার
বসিয়ে ক্রয়-বিক্রয়ের কাজ চালিয়ে আসছে। ফলে রাস্তায়
বাজার বসার কারনে প্রতি দিন কোন না কোন দুর্ঘটনার ঘটনা
ঘটছে। এলাকার লোকজন অবিলম্বে কলমের ইটভাটা সরিয়ে
দিয়ে সরকারী জায়গায় আবারো বাজার বসানোর দাবী জানান।
এলাকার প্রবীন ব্যক্তি জাহিদুল ইসলাম, ইয়ানুছ আলী, আব্দুল
জব্বারসহ একাধিক লোকজনের অভিযোগ, তৎকালীন
জোট সরকার জামায়াত-বিএনপি’র আমলে স্বর্ণ ব্যবসায়ী কলম
ভটখালী দহেরঘাটে সরকারী জায়গা জবরদখলের মাধ্যমে
ইটভাটা নির্মান করেন। ইটভাটা নির্মানের পর পরই দহের ঘাটের
সপ্তাহের বসা বাজারটি উপরের রাস্তায় তুলে দেয়।
লোকজন প্রতিবাদ করলে তাকে নানা ভাবে হয়রানী ও
নির্যাতন করে। বিষয়টি নিয়ে কথা বলার চেষ্টা করলেও স্বর্ণ
ব্যবসায়ী আবুল কালাম কলমকে পাওয়া যায়নি।
অপরদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকিউল ইসলাম বলেন,
সরকারী জায়গা জবরদখল করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত
ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও খাল ভরাটের বিষয়টির খোঁজ খবর
নিয়ে প্রভাবশালী কলমের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া
হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে