গাইবান্ধায় প্রথম শ্রেনীতে অধ্যায়নরত স্কুল ছাত্রী ধর্ষন।

0
697

রাকিবুল ইসলাম: গাইবান্ধা সদর উপজেলার কুপতলা গ্রামে ৯ বছর বয়সী প্রথম শ্রেণির এক শিশুকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। শিশুটি স্থানীয় মধ্যপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত প্রথম শ্রেণির ছাত্রী।

মঙ্গলবার গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে মেয়েটির ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। অসুস্থ অবস্থায় মেয়েটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

শিশুটি জন্মের ৩ মাস পর তার বাবা মোকছেদুল ইসলাম মারা যায়। ৫ মাস পর তার মা লাবণী বেগম অন্যস্থানে বিয়ে করে চলে যায়। ফলে এতিম শিশুটি তার দাদি পশ্চিম কুপতলা মধ্যপাড়া গ্রামের মর্জিনা বেগমের বাড়িতে থেকে প্রতিপালিত হচ্ছিল। গত রবিবার সন্ধ্যায় তাদের চার্জ দেওয়া টর্চলাইট নিয়ে আসার জন্য প্রতিবেশী আইয়ুব খানের ঘরে যায় ওই মেয়েটি। এসময় ঘরে থাকা আইয়ুব খানের বখাটে ছেলে শাকিল মিয়া শিশুটিকে জাপটে ধরে হাত দিয়ে মুখ চেপে ধর্ষণ করে এবং তাকে চাকু দেখায় ও বিষয়টি কাউকে বললে মেরে ফেলা হবে বলে হুমকি দেয়। শিশুটি বাড়িতে ফিরে সন্ধ্যায় অসুস্থ হয়ে পড়লে দাদির জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষণের ঘটনাটি প্রকাশ করে।
ওই রাতেই স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মিমাংসার চেষ্টা করা হলে শাকিল মিয়ার পরিবার হুমকি ধামকি দিয়ে তাদেরকে বিদায় করে দেয়। পরে অসুস্থ শিশুটিকে গাইবান্ধা সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এব্যাপারে ধর্ষণের শিকার শিশুটির দাদি মর্জিনা বেগম বাদি হয়ে চারজনকে আসামি করে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খাঁন মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করার পর অপরাধীকে গ্রেফতারে পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। তবে অভিযুক্ত শাকিল মিয়া (১৯) এর বাবা আইয়ুব খানকে সোমবার রাতে আটক করা হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে