দূর্গাপুর সরকারি র্নীতিমালা তোয়াক্কা না করে নিজের নামে দোকান ঘর বরাদ্ধের অভিযোগ

0
700

রাজশাহী প্রতিনিধি : রাজশাহী দূর্গাপুর কোন নিয়ম র্নীতিকে তোয়াক্কা না করে র্দীর্ঘ চার বছর ধরে দূর্গাপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছেন উক্ত বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শফিকুল ইসলাম।

আরো অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষকের সকল সুবিধা পাওয়ার পরেও পুর্বের সহকারী শিক্ষকের বেতন ভাতা বাবদ এক লক্ষ ৫২ হাজার ৭ শত ৮৫ টাকা উত্তোলন করে আত্নসাত করেছেন।
এই বিষয়ে উচ্চ মাধ্যমিক মাহা পরিচালক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।
হান্নান ইসলাম টনি নামের এক ব্যাক্তি
অভিযোগে উল্লেখ করেছেন।শফিকুল ইসলাম ২০১১ সনের অক্টোবর মাসে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসাবে যোগদান করেন, নভেম্বর ২০১১ হইতে জানুয়ারি ২০১৩ পর্যন্ত ১৫ মাসের সহকারী প্রধান শিক্ষক পদের এখনো আছেন। কিন্তু প্রধান শিক্ষক অবৈধ্য অর্থ উপাযন করেন। এছাড়াও বিদ্যালয়টি সরকরি ঘোষনা হওয়ার পরেও অনিয়ম তান্ত্রিক বিদ্যালয়ে পাকাকরন ঘর তৈরীর সহ বিভিন্ন উন্নয়নের নামে প্রতারনা কাজ করে আসছেন।

তিনি নিজের নামে তিনটি দোকান ঘর নিয়েছেন যা প্রতিবেশীদের ভাবিয়ে তুলেছেন শফিকুলের অবৈধ ভাবে উত্তোলন করা সেই টাকা সরকারি কষাগারে জমাদেওয়ার জন্য পুর্বে নোটিশ ও করেছে বিদ্যালয়ের ( সাময়ীক বরখাস্ত ) প্রধান শিক্ষক। সরকারি বিধি মোতাবেক কোন স্কুলের প্রধান শিক্ষক কে সাময়িক বরখাস্ত করা হলে তা শিক্ষাবোর্ড কে অবগত করার নিয়ম থাকলেও তা মানা হয়নি এই ক্ষেত্রে।

রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে, তিনি বিষয়টি অবগত নয় বলে জানিয়েছে। পরে এবিষয়ে আরো জানতে চাইলে নাম প্রকাশের অনইচ্চুক একজন রাজশাহী শিক্ষাবোর্ড কন্ট্রলার রুমের একজন বলেন, এই ভাবে প্রতিষ্ঠান চালানো অবশ্যই আইন বহিভুক্ত নয় তিনি আরো বলেন সরকারি র্নীতিমালা অনুযায়ী চলা উচিত ।

রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষ) মুঠো ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন ২০১৮ সনে কিছু নতুন আইন যোগ হয়েছে সেখানে উল্লেখ রয়েছে দুই মাসের বেশী সময় কাউকে সাময়ীক ভাবে বরখাস্ত রাখা যাবেনা তবে সঠিক বিষয় জানার জন্য আমি দূর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দিছি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে