টাইপ-২ ডায়াবেটিক শুধুমাত্র সচেতনতার মাধ্যমে অনেক দিন স্বাভাবীক জীবন যাপন করা সম্ভব

0
769

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির অবদানে অনেক কিছুই যেমন সহজ হয়ে গিয়েছে, তেমনি আমরাও দিন দিন কায়িক শ্রম থেকে নিজেকে দূরে রাখছি। আগে ডায়াবেটিক রোগীর সংখ্যা গানিতিক হারে বৃদ্ধি পেলেও বর্তমানে বলা যায় তা জ্যামিতিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। সমাজকর্মী মাজহারুল ইসলাম মনে করেন, ডায়াবেটিক রোগীর সংখ্যা যেভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে এভাবে বাড়তে থাকলে একদিন দেখা যাবে প্রতি ঘরে ঘরে ডায়াবিেটক রোগী। এখনই ডায়াবেটিক নিয়ে মানুষের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি করা না গেলে পুরো সমাজে ডায়াবেটিক মহামারী আকার ধারণ করবে।


মাজহারুল ইসলাম বলেন, টাইপ-২ ডায়াবেটিক শুধুমাত্র সচেতনতার মাধ্যমে অনেক দিন স্বাভাবীক জীবন যাপন করা সম্ভব। ডায়াবেটিক রোগীদেরকে নিয়ে উনার আট বছরের কাজের অভিজ্ঞতা থেকে বলেন, অধিকাংশ টাইপ-২ ডায়াবেটিক রোগী তখনই চিকিৎসকের কাছে আসেন যখন তার সুগারের পরিমান থাকে হাই, পা, চোখ বা অন্যান্য কোন অঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যায়। ততদিনে ডায়াবেটিকে আক্রান্ত ব্যক্তি একদিকে যেমন আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়, অন্যদিকে শারীরিকভাবে হয়ে পড়ে অনেক দুর্বল। মাজহারুল ইসলাম মনে করেন, টাইপ-২ ডায়াবেটিক রোগীদেরকে যদি প্রথম দিকে চিহ্নিত করা হয়, তাহলে তারা ডাক্তারের পরামর্শে শুধুমাত্র সচেতনতার মাধ্যমে অনেক দিন পর্যন্ত স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারবে। তিনি আরো বলেন, প্রতিটি মানুষের সুস্থ থাকা অবস্থায় বছরে তিন থেকে চারবার সুগার টেস্ট করা প্রয়োজন। আর এরজন্য সমাজে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সবার মাঝে জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। তিনি পথচারীদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে আরো বলেন, আমাদেল লাইফ স্টাইল পরিবর্তন করতে হবে। আমরা কোন রকম কষ্ট করতে আগ্রহী নই। সামান্যতম হেঁটে যাওয়ার রাস্তা হলেও না হেঁটে রিক্সা করে যাচ্ছি। অবসর সময়ে খালি জায়গায় মানসিক প্রশান্তি নিয়ে হাঁটচ্ছি না। অফিস, সংসার এমনকি ব্যবসা নিয়ে সবসময় নিজেকে রাখছি ব্যস্ত বা দুশ্চিন্তায়। মোবাইল সেটকে অবসস সময়ের বিনোদনের মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছি।

ডায়াবেটিকের ভয়াবহতার কথা অনুভব করে মোঃ মাজহারুল ইসলাম প্রতিষ্ঠা করেন ‘এসো সচেতন হই (এসই)’। এসই ২০১৫ সাল থেকে মানুষের মাঝে ডায়াবেটিক কুসংস্কার দূরীকরণ এবং ডায়াবেটিক সচেতনতা নিয়ে কাজ করছে। এসই স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, বিশ^দ্যালয়ের হলে এমনকি সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারীদের মধ্যে এবং গুরুত্বপূর্ণ পাবলিক প্লেসে পথচারীদের মাঝে ডায়াবেটিক কুসংস্কার দূরীকরণ এবং ডায়াবেটিক সচেতনতা নিয়ে কাজ যাচ্ছে।
গত এপ্রিল ১৪, ২০১৯ ইং মান্ডা শেষ মাথায়, আমিন মোহাম্মদ সিটিতে হাজারো মানুষের মাঝে ডায়াবেটিস কুসংস্কার দূরীকরণ নিয়ে এবং ডায়াবেটিস সচেতননতা নিয়ে উক্ত কথাগুলো বলছিলেন সমাজকর্মী মাজহারুল ইসলাম।

মাজহারুল ইসলাম পথচারীদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে আরো বলেন, ডয়াবেটিক সম্বন্ধে নিজে জানুন তারপর ডায়াবেটিক নিয়ে মন্তব্য করুন। না জেনে ডায়াবেটিক নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকুন। আপনার একটি নেতিবাচক মন্তব্য ডায়াবেটিক রোগীর উপর বিরুপ প্রভাব পড়তে পারে।
মাজহারুল ইসলাম পথচারীদের উদ্দেশ্যে পথচারীদের কাছে দাবী করে করেন, যারা আজকে এসই এর সচেতনতামূলক আলোচনায় অংশগ্রহণ করেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই এক একজন আজকে থেকে এসই এর সদস্য। আপনারা প্রত্যেকে ডায়াবেটিক সম্বন্ধে যা জানতে পেরেছেন তা আপনার পাশের প্রতিবেশী এবং অফিস সহকর্মীদের মধ্যে শেয়ার করবেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে